Everyday 10 to 5pm except Monday. Friday 3-5 pm

This Day In History: 1971-10-13

বরইতলা গণহত্যা, কিশোরগঞ্জ

আজ ১৩ অক্টোবর। ১৯৭১ সালের এই দিনটি কিশোরগঞ্জের ইতিহাসে ছিল ভয়াবহতম। পাক হানাদার বাহিনী এদেশীয় দোসরদের সহায়তায় সদর উপজেলার কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের বরইতলা নামক স্থানে নিরীহ গ্রামবাসীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। নির্মমভাবে গণহত্যা করে  চার শতাধিক সাধারণ মানুষকে। সে দিনে হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়েছিলেন কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের বরইতলাসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের নিরীহ মানুষ। ১৯৭১ সালের এই দিনে সকাল ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জ থেকে ট্রেনে করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আল বদর, আল শামস বাহিনী কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের বরইতলা নামক স্থানে এসে নামে। তারা পার্শ্ববর্তী দামপাড়া গ্রামে প্রবেশ করে ৪/৫ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে নির্বিচারে হত্যা করে। ঘটনার আকস্মিকতায় প্রাণে বাঁচতে কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের দামপাড়া, কড়িয়াইল, তিলকনাথপুর, গোবিন্দপুর, চিকনিরচরসহ আশপাশের গ্রামের লোকজন নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ছোটাছুটি করতে থাকে। এ সময় পাকবাহিনীর এদেশীয় দোসররা গ্রামের সাধারণ মানুষকে সভা হবে বলে ডেকে বরইতলা নিয়ে যায়। এ সময় এক রাজাকার হানাদার বাহিনীর কাছে এসে খবর দেয় যে, গ্রামবাসী একজন সৈনিককে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলেছে। এ গুজবের সত্যতা যাচাই না করেই বর্বর হানাদার বাহিনী হত্যালীলায় মেতে ওঠে। স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় হানাদার বাহিনী বরইতলায় নিরীহ গ্রামবাসীকে কিশোরগঞ্জ-ভৈরব রেললাইনের পাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে, লোহার রড এবং রাইফেলের বাট দিয়ে পিটিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে। এভাবে চার শতাধিক গ্রামবাসীকে নির্মমভাবে হত্যা করে।