Everyday 10 to 5pm except Monday. Friday 3-5 pm

This Day In History: 1971-04-21

শ্রী অঙ্গন গণহত্যা, ফরিদপুর

২১ এপ্রিল, ১৯৭১। এই দিনে ফরিদপুরের শ্রীধাম শ্রীঅঙ্গন আশ্রমে ঘটেছিল মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে জঘন্যতম নারকীয় গণহত্যার একটি। পাকিস্তানি সেনারা ২১ এপ্রিল ভোরে গোয়ালন্দঘাট হয়ে সন্ধ্যায় রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ে অবস্থান নেয়। সেখান থেকেই শহরের দিকে গোলাবারুদ নিক্ষেপ করতে থাকে একের পর এক। সন্ধ্যার পরে শহরে ঢুকে প্রথমেই গোয়ালচামট শ্রীঅঙ্গনে প্রবেশ করে। তখন আশ্রমে কীর্তন চলছিল। পাকিস্তানি সেনারা কীর্তনরত সাধুদের হুকুম দিয়ে বলে ‘বাহার মে আও’। কিন্তু সাধুরা সেদিকে ভ্রুক্ষেপ না করে কীর্তন চালিয়ে যান। পরে মানুষ রুপী হায়েনার দল প্রথমে মন্দিরে ঢুকে কীর্তনরত ৯ সাধুকে বের করে মন্দিরের পাশে চালতে গাছ তলায় নিয়ে আসে। এরপর ৮ সাধুকে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করে। সাধুরা তখন একমনে জয় জগদ্বন্ধু জপছিলেন। পাকিস্তানি সেনারা তখন মনে করেছিল তারা জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু বলছেন। তাই সাধুদের হত্যা করা হয়। পরদিন ভোরে ফরিদপুর মিউনিসিপ্যালটির ট্রাক এসে লাশগুলো নিয়ে যায়। এ দিন শ্রীঅঙ্গনে বিহারী ও রাজাকাররা লুটপাট চালায়। ২৬ এপ্রিল ডিনামাইট দিয়ে শ্রীঅঙ্গনের মূল ভবনের একাংশ ও মন্দিরের চূড়া ধ্বংস করে দেওয়া হয়।

ফরিদপুর শহরের শ্রীধাম শ্রীঅঙ্গনে সেদিন পাকিস্তানি সেনারা ব্রাশফায়ারে হত্যা করেছিলেন- কীর্তনব্রত ব্রহ্মচারী, নিদান বন্ধু ব্রহ্মচারী, অন্ধকানাই ব্রহ্মচারী, বন্ধুদাস ব্রহ্মচারী, ক্ষিতি বন্ধু ব্রম্মচারী, গৌঢ়বন্ধু ব্রম্মচারী, চির বন্ধু ব্রহ্মচারী ও রবি বন্ধু ব্রম্মচারীকে।